অপরিচিত নারীকে সালাম দেয়ার বিধান : পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ

অপরিচিত নারীকে সালাম
দেয়ার বিধান :
পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ
সালাম হল, মুসলিম উম্মাহর
অভিবাদন ও সম্ভাষণ। এ
অভিবাদনের পূর্ণতা ও
সম্পূর্ণতা হল-(ﻡﻼﺴﻟﺍ
ﻪﻠﻟﺍ ﺔﻤﺣﺭﻭ ﻢﻜﻴﻠﻋ
ﻪﺗﺎﻛﺮﺑﻭ) – এ কথা বলা।
আর সালামের উদ্দেশ্য হল,
একজন মুসলিমের জন্য শান্তি,
রহমত ও বরকতের জন্য দো‘আ
করা।
>>>> পবিত্র কুরআনের
আলোকে পর্যালোচনা ও
বিশ্লেষণ <<<>>> হাদীসের আলোকে
পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ
<<<<
১। যখন কোন অপরিচিত
নারীকে সালাম দেয়াতে
ফিতনায় পতিত হওয়ার
আশংকা না থাকে, তখন শর্ত
সাপেক্ষে তাদের সালাম
দেয়া বৈধ। প্রমাণ হিসাবে
বলা যায় যে, সাহাল ইব্ন
সায়াদ রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’
হতে বর্ণিত, তিনি বলেন,
«
ﻲﻓﻭ ﺓﺃﺮﻣﺍ ﺎﻨﻴﻓ ﺖﻧﺎﻛ
ﺯﻮﺠﻋ ﺎﻨﻟ ﺖﻧﺎﻛ :ﺔﻳﺍﻭﺭ
ﻖﻠﺴﻟﺍ ﻝﻮﺻﺃ ﻦﻣ ﺬﺧﺄﺗ
،ﺭﺪﻘﻟﺍ ﻲﻓ ﻪﺣﺮﻄﺘﻓ
،ﺮﻴﻌﺷ ﻦﻣ ﺕﺎﺒﺣ ﺮﻛﺮﻜﺗﻭ
،ﺔﻌﻤﺠﻟﺍ ﺎﻨﻴﻠﺻ ﺍﺫﺈﻓ
ﺎﻬﻴﻠﻋ ﻢﻠﺴﻧ ﺎﻨﻓﺮﺼﻧﺍﻭ
ﺎﻨﻴﻟﺇ ﻪﻣﺪﻘﺘﻓ«ﻩﺍﻭﺭ
ﻱﺭﺎﺨﺒﻟﺍ.
আমাদের মধ্যে একজন নারী
ছিল, অপর এক বর্ণনায়
আমাদের মধ্যে একজন বৃদ্ধ
নারী ছিল, সে সিলক (এক
প্রকার শাক বা তরকারী) এর
মূল তুলে এনে পাতিলে ঢালত
এবং গমের দানা পিষে তার
সাথে মিশ্রণ করত। আমরা
যখন জুমার সালাত আদায়
করে বাড়িতে ফিরতাম
তাকে সালাম দিতাম এবং
সে আমাদের সামনে তা
পেশ করত। [সহীহুল বুখারী।]
২। অন্য আরও একটি হাদীসে
এসেছে –
উম্মে হানি ফাখেতা
বিনতে আবু তালেব
রাদিয়াল্লাহু ‘আনহা’ হতে
বর্ণিত, তিনি বলেন,
«
ﻲﺒﻨﻟﺍ ﺖﻴﺗﺃ  ﻡﻮﻳ
،ﻞﺴﺘﻐﻳ ﻮﻫﻭ ﺢﺘﻔﻟﺍ
،ﺏﻮﺜﺑ ،ﻩﺮﺘﺴﺗ ﺔﻤﻃﺎﻓﻭ
ﺕﺮﻛﺫﻭ ،ﺖﻤﻠﺴﻓ
ﺚﻳﺪﺤﻟﺍ«ﻢﻠﺴﻣ ﻩﺍﻭﺭ ، .
“আমি মক্কা বিজয়ের দিন
রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি
ওয়াসাল্লাম’ এর নিকট আসি,
তখন তিনি গোসল করছিলেন,
আর ফাতেমা রাদিয়াল্লাহু
‘আনহা’ একটি কাপড় দ্বারা
তাকে আড়াল করে রাখেন।
আমি তাকে সালাম
দিলাম”… তিনি বাকী
হাদিস বর্ণনা করেন।
[মুসলিম, হাদিস: ৪৯৮/১, ৮২]
৩। আসমা বিনতে ইয়াযিদ
রাদিয়াল্লাহু ‘আনহা’ হতে
বর্ণিত, তিনি বলেন,
«
ﻲﺒﻨﻟﺍ ﺎﻨﻴﻠﻋ ﺮﻣ  ﻲﻓ
ﺎﻨﻴﻠﻋ ﻢﻠﺴﻓ ﺓﻮﺴﻧ«
ﺩﻭﺍﺩ ﻮﺑﺃ ﻩﺍﻭﺭ
ﺚﻳﺪﺣ :ﻝﺎﻗﻭ ﻱﺬﻣﺮﺘﻟﺍﻭ
ﻲﺑﺃ ﻆﻔﻟ ﺍﺬﻫﻭ ،ﻦﺴﺣ
ﺩﻭﺍﺩ،
“রাসূল সাল্লাল্লাহু
‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’
আমাদের নারীদের একটি
জামাতের উপর দিয়ে
অতিক্রম করেন এবং তিনি
আমাদের সালাম দেন”।
বর্ণনায় আবু-দাউদ ও
তিরমিযী । ইমাম
তিরমিযী বলেন, হাদিসটি
হাসান। উল্লেখিত শব্দ আবু-
দাউদের।
৪। আর তিরমিযীর শব্দ
নিম্নরূপ:
«ﻪﻠﻟﺍ ﻝﻮﺳﺭ ﻥﺃ  ﻲﻓ ﺮﻣ
ﻦﻣ ﺔﺒﺼﻋﻭ ﺎًﻣﻮﻳ ﺪﺠﺴﻤﻟﺍ
ﻯﻮﻟﺄﻓ ،ﺩﻮﻌﻗ ﺀﺎﺴﻨﻟﺍ
ﻢﻴﻠﺴﺘﻟﺎﺑ ﻩﺪﻴﺑ
».
“রাসূল সাল্লাল্লাহু
‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’
একদিন মসজিদ দিয়ে যেতে
ছিল, নারীদের একটি দল
মসজিদে বসা ছিল। রাসূল
সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি
ওয়াসাল্লাম’ তাদের
ইশারায় সালাম করেন”।
সুতরাং বলা যায় যে, ইসলাম
হল, মহব্বত, ভালোবাসা,
ভ্রাতৃত্ব, উত্তম পরিণতি,
স্থায়ী শান্তি ও পরিপূর্ণ
সম্মান লাভের দ্বীন, সেহেতু
আমরা যারা মুসলিম তাদের
জন্য ইসলামের শিক্ষাকে
বাস্তবায়ন করা, ইসলামের
বিধান অনুযায়ী আমল করা
এবং ইসলামের প্রদর্শিত পথ ও
নির্দেশনা অনুযায়ী
জীবনকে পরিচালনা করা
খুবই জরুরি। পক্ষান্তরে
নারীকে সালাম দেয়া যায়
যদি ফিতনার আশংকা না
থাকে। আল্লাহ তা’আলা
আমাদের হেফাযত করুন,
আমীন।

Daily Hadits

Author: Daily Hadits

আল্লাহ্ এক

Leave a Reply